ময়মনসিংহ - ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ || ৩রা আশ্বিন, ১৪২৭

শিরোনাম

ময়মনসিংহ সদর ইউনিয়নে জলাবদ্ধতা জুম ক্লাউডের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ । অবশেষে পরির্দশন

ময়মনসিংহ সদর ইউনিয়নে জলাবদ্ধতা জুম ক্লাউডের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ । অবশেষে পরির্দশন

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ময়মনসিংহ জেলার চরনিলক্ষীয়া ও চর ঈশ্বরদিয়ার দুটি ইউনিয়নে খাল ভরাট ও নদীতে বাঁধ সৃষ্টি ও খাল নদী অবৈধ ভাবে দখল করে মৎস্য খামার গড়ে উঠায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হ”েছ। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় প্রায় ৫ লাখ পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। বৃষ্টির পানি সড়ে না যাওয়ার কারনে ঘরবাড়িতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়া লোকজন অসীম দূভের্োগ নেমে এসেছে। স্য়থানীয় লোক জন প্রতি বৃধবার জুম ক্লাউডের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমানের কাছে অভিযোগ দেয়ায় এরই প্রেক্ষিতে গত ১৫ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসকের  নির্দেশে ¯’ানীয় সরকারের উপপরিচালক এম কে এম গালিভ খাঁনের নেতৃত্বে ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম পরিদর্শন করেন। এবং জলাবদ্ধতা নিরসনে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবেন।

চরনিলক্ষীয়া ও চর ঈশ্বরদিয়ার দুটি ইউনিয়নে খাল ভরাট ও নদীতে বাঁধ সৃষ্টি ও খাল নদী অবৈধ ভাবে দখল খালে বানা দিয়ে  মৎস্য খামার গড়ে উঠায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হ”েছ। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় প্রায় ৫ লাখ পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। এ নিয়ে ঐসব এলাকার লোকজন ফেসুবুক সহ বিভিন্ন ভাবে তাদের মানবেতর জীবন যাপনের কথা তুলে ধরায় প্রশাসনের নজরে আসে । এছাড়া জেলা প্রশাসকের সঙ্গে জুম ক্লাউডের মাধ্যমে সরাসরি তাদের কস্টের কথা বর্ণনা করেন। এরি প্রেক্ষেতে ১৫ই সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক এমকেএম গালিভ খাঁনের নেতৃত্বে উপজেলার চরনিলক্ষীয়া ও চরঈশ্বরদিয়া ময়মনসিংহ সদর ও তারাকান্দা দুই উপজেলার উভয় অংশে খাল ভরাট করায় সৃষ্ট জলাবদ্ধতার স্থান সরেজমিনে পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম। এসময় জলাবদ্ধতা নিরসনে স্থানীয় সরকার ময়মনসিংহের উপপরিচালক একেএম গালিভ খাঁন ইউএনও সাইফুল ইসলাম কে জলাবদ্ধতা নিরসনে বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক পরামর্শ দেন । পরিদর্শনে কর্মকর্তাগণ দুইটি গুরুত্বপূর্ণ খাল বিভিন্ন জায়গায় ভরাট ও ছোট করে ফেলা এবং তারাকান্দায় সাতটি জায়গায় সংযুক্ত নদীতে বাঁধ সৃষ্টি করার ফলে ও নদী অবৈধ দখল করে অসংখ্য পুকুর তৈরির ফলেই এই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান ।

এসময় সদর ও তারাকান্দার উভয় অংশে এই জলাবদ্ধতা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং সবাইকে হুঁসিয়ার করেন স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক এমকেএম গালিভ খাঁন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম।এর আগেও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনে মুখ্য ভূমিকা রাখেন এই ইউএনও সাইফুল ইসলাম ।এতে কৃষক সম্প্রদায়সহ সাধারণ মানুষের মধ্যে এ ইউএনও’র প্রশংসা ছড়িয়ে পড়েছে। এ সময় চরনিলক্ষীয়া ও চরঈশ্বরদিয়াসহ সদর তারাকান্দা উপজেলার আওতাধীন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, সবাই যদি জনস্বার্থের কথা চিন্তা করতো তাহলে এ ধরণের সমস্যা হতো না। তিনি সবাইকে জনস্বার্থে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান।

এই বিভাগের আরও খবর