ময়মনসিংহ - ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ || ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭

শিরোনাম

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে অশালীন আচরণ ও উৎকোচ চাওয়ার প্রতিবাদে সদর ইউনিয়ন উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

মুহাম্মদ আবু হেলাল, শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুরের সীমান্তবতীর্ ঝিনাইগাতী উপজেলার সদর ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে উৎকোচ চাওয়া ও অশালীন আচরণ করার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন জৈনক হাজেরা ইয়াছমিন নামের এক নারী। ২৬ অক্টোবর সোমবার সকালে ভুক্তভোগী মোছাঃ হাজেরা ইয়াসমিনের বাসায় মোঃ রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে লিখিত বক্তব্যে রহুল আমিনের স্ত্রী হাজেরা ইয়াসমিন বলেন, “আমার স্বামী মোঃ রহুল আমিন ঝিনাইগাতী মৌজায় ৮৯/১৩৩ খতিয়ানের ১২৬/১৫৪ নং দাগের ১০ শতাংশ জমিকে কেন্দ্র করে আদালতে ১৪৪ ধারায় একটি মামলা করেন। আদালত থেকে ওই জমির তদন্তভার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঝিনাইগাতী বরাবর আদেশ প্রদান করেন। ওই আদেশের প্রেক্ষিতে ঝিনাইগাতী সদর ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা তদন্ত কার্যক্রম সম্পূর্ণ করেন। তদন্তকালে উপসহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম আমার নিকট উৎকোচ দাবী করেন। আমি তার চাহিত উৎকোচ দিতে অস্বীকার করায় উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আমার সাথে অশালিন ও অস্রাব্য আচরণ করেন। সে সাথে আমাকে অপমান অপদস্ত করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে অফিস থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং পক্ষাশ্রিত হয়ে বিবাদীর পক্ষে রিপোর্ট প্রদান করেন। আমি মিডিয়ার মাধ্যমে এর পূর্ণ তদন্ত ও বিচার চাই।” এ ব্যাপারে উপ-সহকারী ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামের সাথে যেগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট, কল্পনাপ্রসূত। কেননা স্মারক নং-৩১.৪৫.৮৯৩৭.০০০.৩৮.০০১.১৮-৫০৬,তারিখ-৬/১০/২০২০ ইং খ্রী: এর নিদের্শ মোতাবেক বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত শেরপুর এর পিটিশন মোকাদ্দমা নং -২৪৩/২০২০ এর আরজির তপছিলকৃত ভুমির সরেজমিন তদন্ত পুবর্ক এলাকার জনসাধারণকে প্রকাশ্যে ও গোপনে জিজ্ঞাসাবাদ করে এবং অত্রাফিসের রেকডর্পত্রার্দী পযার্লোচনা করে গত ১১/১০/২০২০ ইং তারিখে রিপোটর্ প্রদান করি। আর জৈনক হাজেরা ইয়াছমিনের অভিযোগ, তার পক্ষে কাজ করা বাবদ আমি উৎকোচ চেয়েছি ২১/১০/২০২০ ইং তারিখে। আপনারা জাতির বিবেক, বিষয়টি আপনারাই এখন ভেবে দেখুন।” উক্ত সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর