ময়মনসিংহ - ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ || ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭

শিরোনাম

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে হাতুড়ে চিকিৎসকের হাতে জিম্মি গবাদি পশু পালনকারী কৃষকগণ

হাতুড়ে চিকিৎসকের হাতে জিম্মি গবাদি পশু পালনকারী কৃষকগণ

মুহাম্মদ আবু হেলাল, শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলায় হাতুড়ে পশু চিকিৎসকের হাতে জিম্মি গবাদি পশু পালনকারী কৃষকরা। অনুসন্ধানে জানা গেছে, সীমান্তবর্তী এ উপজেলায় শতাধিক হাতুড়ে পশু চিকিৎসক রয়েছে। তাদের নেই কোন প্রশিক্ষন বা অভিÁার সনদ। এরা দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় পশু চিকিৎসার নামে গবাদি পশু পালন কারিদের সাথে প্রতারনা করে হাতিয়ে নিচ্ছে অর্থ। গবাদি পশুর সামান্য সর্দি জ্বরে নানা অজুহাতে হাতিয়ে নেয়া হয় মোটা অংকের টাকা। আবার কোন কোন সময় এসব হাতুড়ে চিকিৎসকের অপ-চিকিৎসায় মারা পড়ছে কৃষকদের গবাদি পশু। অভিযোগ রয়েছে, উপজেলা প্রানী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের যোগসাজশে এসব হাতুড়ে চিকিৎসকরা এসব অপচিকিৎসা চালিয়ে আসছে। জানা গেছে, এসব হাতুড়ে পশু চিকিৎসকরা নিজেদের প্রানী সম্পদ অধিদপ্তরের সরকারী কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে গ্রামে গ্রামে পশু চিকিৎসা ক্যাম্প স্হাপন করে গবাদী পশু চিকিৎসার নামে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে মোটা অংকের অর্থ। গত ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার কয়েকজন হাতুড়ে পশু চিকিৎসক রাংটিয়া স্কুল মাঠে একটি ক্যাম্প স্হাপন করে গবাদি পশু চিকিৎসা দেয়। এসময় রাংটিয়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের একটি মহিষের মৃত্যু হয়। মহিষের মুল্য প্রায় ৬০ হাজার টাকা হবে। জয়নাল এ ঘটনার বিচারের দাবিতে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও বিচার পাচ্ছে না। এব্যাপার উপজেলা প্রানী সম্পদ অধিদপ্তরের ভ্যাটেনারী সার্জন ফয়জুর রাজ্জাক আকন্দের সাথে কথা হলে তিনি বলেন“বিষয়গুলো সর্ম্পকে আমরা অবগত আছি।কিন্তু কেউ অভিযোগ না করলে আমাদের কিছু করার নেই।”উপজেলার ভুক্ত ভোগী গবাদিপশু লালন-পালনকারীরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষে কামনা করছেন।

এই বিভাগের আরও খবর